অবশেষে মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ হলেন জেসিয়া ইসলাম

চ্যানেল ডেস্ক : সব বিতর্কে ঘি ঢেলে দিয়ে বুধবার (৪ অক্টোবর) সন্ধ্যায় নতুন করে ঘোষণা করা হয়েছে মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ ২০১৭ এর বিজয়ী জেসিয়ার নাম। তিনিই এখন টক অব দ্য কান্ট্রি। আগামী ১৮ নভেম্বর চীনের সাংহাই শহরে অনুষ্ঠেয় ৬৭তম মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ থেকে অংশ নেবেন তিনি।

অন্তর শোবিজ ও অমিকন এন্টারটেইনমেন্টের মাধ্যমে বিশ্ব সুন্দরী প্রতিযোগীর মঞ্চে জেসিয়া ওড়াবেন বাংলাদেশের পতাকা। বিজয়ী হয়ে রাতারাতি আলোচনায় চলে এসেছেন জেসিয়া। থামিয়ে দিয়েছেন এভ্রিল ঝড়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে সবাই জানতে চাইছেন কে এই জেসিয়া।

বিজ্ঞাপন চ্যানেলের সঙ্গে একান্ত আলাপে জেসিয়া জানালেন তার আদ্যোপান্ত। এই সুন্দরীর পারিবারিক নাম জেসিয়া ইসলাম। তিনি পুরান ঢাকার মেয়ে। তার জন্ম ও বেড়ে ওঠা সেখানেই। জেসিয়ার বাবার নাম মনিরুল ইসলাম, যিনি পেশায় একজন ব্যবসায়ী। জেসিয়ার মা গৃহিণী, নাম রাজিয়া সুলতানা। বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান ৫ ফুট ৮ ইঞ্চির এই সুন্দরী।

জেসিয়ার বাবা-মায়ের দাম্পত্য জীবনে বিচ্ছেদের কারণে তিনি রাজধানীর মহাখালীতে একাই থাকেন। মাঝেমধ্যে বাবা-মার সঙ্গে দেখা করেন। জেসিয়া লেখাপড়া করেছেন ইংরেজি মাধ্যম সাউথপয়েন্ট একাডেমিতে। সেখান থেকে ও-লেভেল সম্পন্ন করে রাজধানীর একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিষয়ে পড়ছেন। তার বয়স ১৮ বছর।

জেসিয়া আরও জানান, মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার পূর্বে ফ্যাশন হাউজ এক্সটেসির মডেল হিসেবে কাজ করেছেন তিনি। তবে নাচ, গান, অভিনয়ের ওপর তার কোনো হাতেকলমে শিক্ষা নেই। যা কিছু শিখেছেন এই সুন্দরী প্রতিযোগিতার প্লাটফর্মেই, বিভিন্ন পর্যায়ের গ্রুমিংয়ের মাধ্যমে।

বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে জেসিয়া বলেন, আমি নিজেকে আইকন বা জনপ্রিয় হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার স্বপ্ন দেখেছিলাম ছোটবেলা থেকে। সেই প্ল্যাটফর্ম পেয়েছি মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ-এর মঞ্চ থেকে। এবার শুধু সামনে এগুতে চাই। সবাই আমার জন্য দোয়া রাখবেন, আমি যেন বাংলাদেশের জন্য ভালো কিছু বয়ে আনতে পারি।’

জেসিয়া আরও বলেন, ‘এটাই প্রথম আমার জীবনে অংশ নেয়া কোনো প্রতিযোগিতা। প্রথমেই অনেক বাঁধা পেরিয়ে সফল হয়েছি। আল্লাহর কাছে আমার লাখো শুকরিয়া। এতদূর আসতে যারা আমাকে সাহায্য করেছেন সবার কাছে আমি কৃতজ্ঞ। আগামীতে আয়োজক প্রতিষ্ঠান অন্তর শোবিজ এবং অমিকন এন্টারটেইনমেন্টের মাধ্যমে আরও কিছু গ্রুমিং করে মূল প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে হবে। দায়িত্ববোধ আরও বেড়ে গেছে।’

প্রসঙ্গত, ২৯ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় ঢাকার বসুন্ধরা আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টারের নবরাত্রী মিলনায়তনে মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ আয়োজনের গ্র্যান্ড ফিনালেতে প্রথম রানার আপ হয়েছিলেন জেসিয়া ইসলাম। পরে অভিযোগ ওঠে, বিচারকদের রায়ে নয়, আয়োজকদের ঘোষণায় এ প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন জান্নাতুল নাঈম ওরফে এভ্রিল। পরে তার বিরুদ্ধে বিয়ের তথ্য গোপনের অভিযোগও উঠে। অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় জান্নাতুল নাঈমকে দেয়া সেই খেতাব বুধবার বাতিল করা হয়। সেই মুকুট এখন জেসিয়া ইসলামের মাথায়।

আয়োজক প্রতিষ্ঠান অন্তর শোবিজের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, এ প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়ার জন্য প্রাথমিকভাবে প্রায় ২৫ হাজার আগ্রহী নাম নিবন্ধন করেন। তাদের মধ্য থেকে কয়েকটি ধাপে বাছাই করা হয়েছে সেরা ১০ জনকে।

এই ১০ জন হলেন রুকাইয়া জাহান, জান্নাতুল নাঈম, জারা মিতু, সাদিয়া ইমান, তৌহিদা তাসনিম, মিফতাহুল জান্নাত, সঞ্চিতা দত্ত, ফারহানা জামান, জান্নাতুল সুমাইয়া ও জেসিয়া ইসলাম।