আক্কেলপুরে জোর করে বিয়ে দিতে চাওয়ায় স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা

নিয়াজ মোরশেদ, আক্কেলপুর(জয়পুরহাট) : জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে জোর করে বিয়ে দিতে চাওয়ায় মার্জিয়া সুলতানা(১৫) নামে এক নবম শ্রেণী ছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সে উপজেলার দেবী শাউল গ্রামের আমজাদ হোসেন এর মেয়ে। রায়কালী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রী ছিল সে।
ঘটনাটি ঘটেছে,  সোমবার ভোরে উপজেলার রায়কালী ইউনিয়নের দেবী শাউল গ্রামে। পুলিশ বেলা ১২ টার দিকে লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে।

সোমবার বেলা ১১ টার দিকে সরোজমিনে ওই গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, নিহত মার্জিয়াকে দেখতে রায়কালী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীরা বাড়িতে এসে লাশ ঘীরে রেখেছে যাতে পুলিশ ময়না তদন্তের জন্য যেন না নিয়ে যেতে পারে। এক পর্যায়ে পুলিশ লাশ নিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তার মধ্যে আবারো বাঁধা দেয় ছাত্র ছাত্রীরা। পরে স্কুল শিক্ষক ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সহযোগীতায় লাশ ময়না তদন্তের জন্য জয়পুরহাট সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সাত্রে জানা গেছে, মার্জিয়া সুলতানা রায়কালী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীতে পড়াশোনা করত। বেশ কিছুদিন ধরে মার্জিয়ার বাবা আমজাদ হোসেন বিয়ে দেওয়ার জন্য বিভিন্ন জায়গা থেকে পাত্র দেখাশোনা করতো। বিয়েতে মার্জিয়ার মত ছিল না।সোমবারে তাকে দেখতে শান্তাহার থেকে বর পক্ষ্য বাড়িতে আসার কথা ছিল। আর সোমবার ভোরে তাঁর পরিবারের লোকজন মার্জিয়ার নিজ ঘর থেকে তার ঝুলন্ত লাশ বের করে পুলিশে খবর দেয়। এলাকার লোকজন বলছে জোর করে বিয়ে দিতে চাওয়াই মার্জিয়া আত্মহত্যা করেছে।

রায়কালী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বেলাল উদ্দিন মন্ডল বলেন, মার্জিয়া সুলতানা নবম শ্রেণীতে বিজ্ঞান বিভাগে পড়াশোনা করত। স্কুলে সে খুব শান্ত মেয়ে ছিল। সকালে জানতে পারি সে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) সিরাজুল ইসলাম সোমবার দুপুর দুইটায় বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে বলেন, ঘটনাটি জানার পর আমি সেখানে গিয়েছিলাম। এবং থানা থেকে পুলিশ যাওয়ার আগেই পরিবারের লোকজন লাশ নামিয়ে ঘর থেকে বাইরে রাখে। ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে।