আক্কেলপুরে সড়কে কাদা জমে দুর্ভোগ

ইনষ্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজী (আই এইচ টি)

নিয়াজ মোরশেদ, জয়পুরহাট: আক্কেলপুর উপজেলার গোপীনাথপুর ইউনিয়নে ইনষ্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজী (আই এইচ টি) ভবনে ট্রাকে করে মাটি সরবরাহের কারনে আক্কেলপুর – দুপচাঁচিয়া সড়কে বৃষ্টিতে কাদায় পরিণত হয়েছে। গোপীনাথপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় থেকে কড়ইতলী পর্যন্ত সড়কে এ অবস্তার সৃষ্টি হয়েছে। গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিতে ওই এলাকার সড়কে কাদা জমেছে। শনিবার রাত থেকে সড়ক দিয়ে সকল প্রকার যানচলাচল বন্ধ করে রাখা হয়েছে।এতে পথচারীদের চরম দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে। এমন অবস্থার জন্য স্থানীয়রা ইউপি চেয়ারম্যান আবু সাঈদ জোয়ারদারকেই দায়ী করছেন। তিনি ইনষ্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজী (আই এইচ টি) ভবনে ট্রাকে করে মাটি সরবরাহ করছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, নিম্নচাপের প্রভাবে সারাদেশে বৃষ্টি হচ্ছে। শরিবার থেকে আক্কেলপুর-দুপচাঁচিয়া সড়কের গোপীনাথপুর ইউপি কার্যালয় থেকে কড়ই তলী পর্যন্ত সড়ক দিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আবু সাঈদ জোয়ারদার ট্রাকে করে মাটি সরবরাহ করছেন আই.এইচ.টি ভবনে। সেখানে চলমান ট্রাক থেকে মাটি পরে সড়কের উপর। আর গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিতে সেটি কাদায় পরিনত হয়েছে। একারোনে সড়কের ওই স্থান দিয়ে সকল প্রকার যান চলাচল করতে পারছে না।

স্থানীয়দের অভিযোগ, চেয়ারম্যান যদি সড়কে পরে থাকা মাটি সড়িয়ে ফেলতেন তাহলে আর এমন কাদার সৃষ্টি হতো না।

স্থানীয় বাসিন্দা মশিউর রহমান বলেন, আই.এইচ.টি ভবন নির্মান কাজকে সাধুবাদ জানাই।কাজের দায়িত্বে নিয়োজিত সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি যদি আগেই মাটিগুলো অপসারন করে দায়িত্ববোধের পরিচয় দিতেন তাহলে এমনটি হতোনা। এ দায় এলাকার সকলে নিতে যাবে কেন?এখন বড় ধরনের দুর্ঘটনা এড়ানোর জন্য অনতিবিলম্বে সড়কটি চলাচলের উপযোগী করা প্রয়োজন।

স্থানীয় বাসিন্দা আতিয়ার সুমন বলেন, সড়কে কাদার সৃষ্টির দায় কেন জনগণকে নিতে হবে। কর্তৃপক্ষ যদি আগে থেকে মাটি সরিয়ে ফেলত তাহলে তো আর সড়কটি বন্ধ থকতো না।

গোপীনাথপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু সাঈদ জোয়ারদার বলেন, ইনষ্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজী (আই এইচ টি) ভবনে আমি ট্রাকে করে মাটি সরবরাহ করছি। বৃষ্টি আগে সড়কে কিছু মাটি পড়েছিল। পরে বৃষ্টির পানিতে তা কাদার সৃষ্টি হয়েছিল। দূর্ঘটনা এড়াতে সড়কটি বন্ধ রাখা হয়েছিল।এখন মাটি অপসারন করা হচ্ছে।