কলেজছাত্রকে ফাঁসাতে গিয়ে কাপাসিয়া থানার ৩ পুলিশ গণপিটুনির শিকার!

কাপাসিয়া (গাজীপুর) প্রতিনিধিঃ পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে কলেজছাত্রকে ফাঁসাতে গিয়ে গণপিটুনির শিকার হয়েছেন পুলিশের তিন সদস্য। রবিবার রাতে গাজীপুরের কাপাসিয়ার চাঁদপুর বাজারে এ ঘটনা ঘটে। থানার ওসি ঘটনাস্থলে গিয়ে উত্তেজিত বাজার ব্যবসায়ীদের বিচারের আশ্বাস দিয়ে জনতার রোষানল থেকে তাদের উদ্ধার করে।

গণপিটুনির শিকার পুলিশ সদস্যরা হলেন, কাপাসিয়া থানার সহ-উপপরিদর্শক সাহাবুদ্দিন, সহ-উপপরিদর্শক কফিলউদ্দিন ও এক কনস্টেবল।

জানা গেছে, রোববার রাত সাড়ে ৭টার দিকে কাপাসিয়ার চাঁদপুর বাজারের ব্যবসায়ী নরেশ শীলের কলেজপড়ুয়া ছেলে অপু শীলকে কাপাসিয়া থানার সহ উপপরিদর্শক সাহাবুদ্দিন ও কফিলউদ্দিন বাজারের পূর্ব পাশে পথরোধ করে তল্লাশি করার সময় পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। আর অপু বাধা দিলে আশপাশের ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ জড়ো হয়ে তিন পুলিশকে আটক করে। এ সময় উত্তেজিত ব্যবসায়ীরা আটক তিন পুলিশ সদস্যকে গণপিটুনি দেন। পরে এক পর্যায়ে পুলিশের এক কনস্টেবল সদস্য পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও দুই সহ উপপরিদর্শককে আটকে রাখে।

হয়রানির শিকার অপু জানান, আমি বাবার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে বাড়িতে যাওয়ার সময় থানার পুলিশ আমাকে পথরোধ করে পকেটে ইয়াবা দেওয়ার চেষ্টা করে। আমি চ্যালেঞ্জ করলে আমাকে গুলি করার হুমকি দেয়।

চাঁদপুর বাজার ব্যবসয়ী সমিতির সভাপতি মো. আমজাদ হোসেন বলেন, প্রায়ই থানার পুলিশ নিরীহ জনগণকে নানা ভয়ভীতি দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা আদায় করে। আজকের ঘটনাটি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবহিত করলে সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাস দেন এবং থানার ওসি ঘটনাস্থলে এসে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ারও আশ্বাস দেন।

কাপাসিয়া থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক বলেন, ঘটনা একটি ঘটেছে। খতিয়ে দেখছি।

গাজীপুরের কালীগঞ্জ-কাপাসিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পঙ্কজ দত্ত জানান, ঘটনা শুনেছি।

কাপাসিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাকছুদুল ইসলাম বলেন, ঘটনার তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।