কাপাসিয়ায় কলেজ ছাত্রীর প্রেমে লাশ হলেন প্রবাসী

কাপাসিয়া (গাজীপুর) প্রতিনিধি:-গাজীপুরের কাপাসিয়ায় কলেজ ছাত্রীর প্রেমের ফাঁদে পড়ে লাশ হলেন আমজাদ হোসেনের (২৬) নামে এক মালদ্বীপ প্রবাসী।তার বাড়ি উপজেলার কড়িহাতা ইউনিয়নের রামপুর গ্রামে।

ওই প্রবাসী সাথে পার্শ্ববর্তী রোখসানা প্রেমের সর্ম্পক করে তার কষ্টার্জিত টাকা আত্মসাতের পর হত্যা এবং মুখে বিষ ঢেলে দিয়ে আত্মহত্যা করছে বলে প্রচারের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কড়িহাতা ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুল আলম মোড়ল বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে জানান, সোমবার সকালে পার্শ্ববর্তী সভারটেকে তার লাশ পাওয়া গেছে বলেImage may contain: 2 people, text জানায় এলাকাবাসী। আমি থানায় খবর দেই। পরে থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

জানা যায়, উপজেলার রামপুর গ্রামের মৃত আবু তাহেরের পুত্র আমজাদ হোসেন গত প্রায় ৩ বছর আগে চাকুরীর জন্য মালদ্বীপে যায়। সেই থেকে পার্শ্ববর্তী সভার টেকের আব্দুর রাজ্জাকের কন্যা   ‘খিরাটি বঙ্গতাজ কলেজের’ ডিগ্রিতে পড়ুয়া রোখসানা আক্তার ওরফে মাসুদার (১৮) সাথে আমজাদের প্রেমের সর্ম্পক গড়ে উঠে। পূর্ব পরিচয়ে র্দীঘ দিনের তাদের প্রেমের সর্ম্পক পারিবারিক পর্যায়ে পৌছে। আমজাদ বিদেশ থেকে আসলে তাদের পারিবারিকভাবে বিয়ে অনুষ্ঠানের কথাও পাকাপাকি হয়ে আছে। এ সুবাদে আমজাদ তার আয় রোজগারের সব টাকাকড়ি মাসুদার নিকট পাঠিয়েছে। এ নিয়ে দু’পরিবারের মাঝে কিছুটা অসন্তষ্টিও ছিল। এ ঘটনা এলাকার অনেকেরই মুখে মুখে আছে।

গত প্রায় ৫ মাস আগে আমজাদ বিদেশ থেকে আসার পর মাসুদার আচরনে পরিবর্তন দেখতে পায়। এক পর্যায়ে মাসুদা আমজাদকে বিয়ে করতেও অস্বিকৃতি জানায়। আমজাদ চাকুরী থেকে ছুটিতে এসে বিয়ে করে আবার ফিরে যাবার কথা ছিল। কিন্ত প্রেমিকা মাসুদা বেগে বসায় সে সামাজিক ও পারিবারিক পর্যায়ে বহু দেনদরবারও করেছে বলেও জানা যায় ।

প্রবাসী আমজাদের বড় ভাই নজরুল ইসলাম জানায়, গত রোববার সন্ধ্যা ৭ টার দিকে মাসুদার ভাই মাসুদ ও খালাত্ত ভাই সবুজ তাদের বাড়িতে আসে। তারা আমজাদের ঘরে বসে গল্পগোজব করে এবং রাত ১১ টার দিকে তাকে নিয়ে বাহিরে যায়। আমজাদ রাতে আর বাড়িতে ফিরে আসেনি। সকাল ৯টার দিকে বাড়ির লোকজন লোকমুখে খবর পায় একশত গজ দূরে আমজাদের লাশ রাস্তার পাশে পড়ে আছে। খবর পেয়ে থানার এসআই দুলাল মিয়া ঘটনাস্থলে যায় এবং লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাঠায়।

এ ব্যাপারে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবু বকর সিদ্দিক জানান, প্রাথমিক তদন্তে বিষ পাণের আলামত পাওয়া গেছে। তবে ময়না তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর সঠিক ভাবে জানা যাবে। আমজাদের পরিবারের কেউ হত্যার অভিযোগে কোন লিখিত আবেদন করেনি।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জানান, খবর পেয়ে সকালে ঘটনাস্থলে যান এবং লাশের পাশে দু’টি বিষের বোতল পড়ে থাকতে দেখেন। তবে আমজাদের সাথে মাসুদা নামক একটি মেয়ের প্রেমের সর্ম্পক ছিল বলে তিনি আগে থেকেই জানতেন।

আমজাদের বৃদ্ধা মা খোদেজা বেগম ছেলের শোকে বিলাপ করতে করতে জানান, আমজাদের সাথে মাসুদাকে বিয়ে দিবে বলে তার পরিবার বিদেশের চাকুরীর ৮ লাখ টাকা আত্মসাত করেছে। মেয়ের ভাইয়েরা আমজাদকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর তার মুখে বিষ ঢেলে দিয়ে আত্মহত্যা বলে প্রচার করছে বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

এ ব্যাপারে মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে মাসুদা  বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে বলেন, “আমাদেরকে ফাঁসিয়ে দেওয়ার জন্য একটি চক্র উঠে পড়ে লেগেছে। আমজাদ মারা যাওয়ার বিষয়ে আমরা কিছুই জানিনা।আমাকে টাকা দেয়া বিষয়টাও ডাহা মিথ্যা। আমাদের সাথে অন্যায় করা হচ্ছে।” আমজাদের সঙ্গে প্রেম ছিল কিনা, জানতে চাইলে এর উত্তর না দিয়ে মাসুদা বলেন, “আপনারা সঠিকভাবে তদন্ত করে দেখেন। আমরা ন্যায় বিচার প্রত্যাশী।”