কাপাসিয়ায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ

কাপাসিয়া (গাজীপুর) প্রতিনিধি : গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার সিংহশ্রী ইউনিয়নের ভিটিপাড়া গ্রামে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত সোমবার রাতে ধর্ষিতা বাদী হয়ে আবেদন জানালে কাপাসিয়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হয়েছে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, শ্রীপুর উপজেলার বরমী ডিগ্রি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী (১৯) সাথে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ ডিগ্রি কলেজ থেকে সদ্য এইচ এস সি পাশ করা মো. রাজিবের (২১) প্রায় দেড় বছর যাবৎ প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল।

গত ৮ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে দশটার দিকে ধর্ষিতা বাথরুমে গেলে হঠাৎ করে রাজিব ধর্ষিতার ঘরে প্রবেশ করে। এত রাতে তার আগমনের কারণ জানতে চাইলে তাদের বিয়ের জরুরি কথা আছে বলে রাজিব দরজা বন্ধ করে দেয় এবং আলোচনার এক পর্যায়ে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে ধর্ষিতার ডাক চিৎকারে তার বাড়ির লোকজন চলে আসলে রাজিব দৌঁড়ে পালিয়ে যায়।

পরের দিন সকালে ধর্ষিতা ও তার পরিবারের লোকজন বিষয়টি রাজিবের বাবা-মার কাছে জানালে তারা ধর্ষিতার বেধরক মারপিট ও অকথ্য গালিগালাজ করে। পরে একটি প্রভাবশালী মহল স্থানীয়ভাবে মীমাংসার আশ্বাস দিয়ে ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে। তাছাড়া বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে ধর্ষিতার পরিবারকে এলাকা ছাড়া করা হবে বলে রাজিব ও তার পরিবারের লোকজন ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদান করে।

নিরুপায় হয়ে গত সোমবার রাতে ধর্ষিতা বাদী হয়ে রাজিব ও তার বাবা সিরাজউদ্দিন এবং তার মা মোসাঃ রেহেনা বেগমকে আসামী করে মামলা (নং-০৭) দায়ের করে। মঙ্গলবার সকালে ধর্ষিতার ডাক্তারি পরীক্ষার জন্যে গাজীপুর তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই মোহাম্মদ ওবায়দুল্লাহ সাংবাদিকদের  জানান, আসামীদের গ্রেফতারের জন্যে চেষ্টা চলছে।