কালীগঞ্জ ও কাপাসিয়ায় তিন বাড়িতে ডাকাতি, আহত ১

গাজীপুর প্রতিনিধি : গাজীপুরের কালীগঞ্জ ও কাপাসিয়ায় পৃথকভাবে তিন বাড়িতে ডাকাতি সংগঠিত হয়েছে। এ সময় ডাকাতদের আঘাতে একজন আহত হন।
কালীগঞ্জ থানা সূত্রে জানা যায়, বুধবার দিবাগত রাতে উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের কলাপাটুয়া এবং ছৈলাদি গ্রামে দুই বাড়িতে ডাকাতি হয়।ডাকাতরা নগদ ২ লক্ষ ৫৩ হাজার টাকা, ১০/১১ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও দামি কাপড় চোপড় লুট করে নিয়ে যায়।
ডাকাতির এ ঘটনায় বাধা দিতে গিয়ে ওই ইউনিয়নের কলাপাটুয়া গ্রামের আলফাজ উদ্দিন খরাদী (৬২) নামের এক ব্যক্তি আহত হয়েছে। তিনি বর্তমানে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি আছেন।
দুই বাড়িতে ডাকাতি ও একজন আহতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জামালপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. মাহবুবুর রহমান ফারুক মাস্টার।
ছৈলাদী গ্রামের মৃত গিয়াস উদ্দিন শেখের ছেলে আলমগীর হোসেন শেখ জানান, তারা দুই ভাই। তিনি গাজীপুর জেলা সদরে পরিবারসহ ভাড়া থেকে ঢাকার একটি ট্রাভেল এজেন্সিতে চাকুরী করেন। আরেক ভাই দেলোয়ার হোসেন শেখ কালীগঞ্জ পৌর এলাকায় পরিবারসহ ভাড়া থেকে স্থানীয় প্রাণ-আএফএল কারখানায় চাকুরী করেন। বোনদের বিয়ে হয়ে গেছে। বাড়িতে শুধু মা একা থাকেন। বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে তিনটার দিকে ১৪/১৫ জনের একটি সশস্ত্র ডাকাত দল তাদের বাড়ীতে প্রবেশ করে। প্রথমে ৬ রুম বিশিষ্ট বিল্ডিং এর মূল কলাপসিপল গেইটের দুটি তালা ভাঙ্গে এবং পরে তিনটি রুমের তালা ভাঙ্গে। এ সময় বাড়িতে থাকা মা ছোলেমা বেগম (৬০) ও বেড়াতে আসা বোন কোহিনূর বেগমকে (৩৫) অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে হাত-পা ও মুখ বেঁধে ফেলে। এ সময় তার মা আলমিরার চাবি দিতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে চর-থাপ্পর মারতে থাকে। পরে ভয়ে এক পর্যায়ে চাবি দিয়ে দিলে ঘরে থাকা নগদ ২ লক্ষ ৫৩ হাজার টাকা, ১০/১১ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও দামি কাপড় চোপড় লুট করে নিয়ে যায়। এ সময় ডাকাতদের পড়নে থ্রী কোয়াটার হাফপ্যান্ট ও কালো জেকেট ছিল।
তিনি আরো জানান, মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য তিনি ভাই ও বোনের কাছ থেকে টাকা সংগ্রহ করে ঘরে রেখে ছিলেন। আগামী পরশু ট্রাভেল এজেন্সিতে টাকাগুলো জমা দেওয়ার কথা ছিল। অন্যদিকে পরিবারের সবাই বাহিরে থাকায় মা, ভাবি ও বোনদের স্বর্ণালঙ্কার বাড়িতেই রাখা ছিল। ঘটনার পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান, সদস্য ও থানা পুলিশ পরিদর্শণ করেছেন।
ইউপি চেয়ারম্যান মো. মাহবুবুর রহমান ফারুক মাস্টার জানান, এর আগে একই রাতে একটি ডাকাত দল ইউনিয়নের কলাপাটুয়া গ্রামের মৃত বাছির উদ্দিন খরাদীর ছেলে আলফাজ উদ্দিন খরাদীর বাড়িতে ডাকাতি চেষ্টা করে। কিন্তু বাড়ির লোকজন টের পেয়ে গেলে ডাকাতরা আলফাজ উদ্দিনকে হাতুরি পেটা ও কুপিয়ে আহত করে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।
কালীগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. নামজুল হক বলেন, ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে, ঘটনাস্থলে গিয়েছি। আমরা তদন্ত করছি।
এদিকে, গতকাল রাতে কাপাসিয়া বাজারের সন্নিকটে এক বাসায় ডাকাতি হয়েছে বলে মোবাইল ফোনে বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে জানান সায়মন নামে এক ব্যবসায়ী।
“ডাকাতরা আমার  বাসা থেকে ৮৬ হাজার টাকা, লক্ষাধিক টাকার স্বর্ণালঙ্কার, মূল্যবান জামা কাপড় ও ডাচ বাংলা ব্যাংকে খোলা আমার হিসাবের চেক বই নিয়ে যায়” বলছিলেন সায়মন।
“পুলিশকে ডাকাতির খবর জানিয়েছেন কিনা?”- জানতে চাইলে সায়মন বলেন, “থানাকে জানিয়ে লাভ নেই।কাপাসিয়ায় প্রায়ই ডাকাতি হয়।যারা জানিয়েছে তারা কোনো ফল পেয়েছে?”
এ ব্যাপারে কাপাসিয়া থানার পরিদর্শক(তদন্ত) নিতাই চন্দ্র সরকার বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে জানান, আমি সারাদিন থানায় ছিলাম।ডাকাতি বিষয়ে অভিযোগ নিয়ে কেউ আমাদের কাছে আসেনি।অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেব।