চাঁদাবাজির অভিযোগে কাপাসিয়া থানার দালাল ইয়াছিনকে গণধোলাই

কাপাসিয়া থানার দালাল ইয়াছিনকে গণধোলাই

কাপাসিয়া (গাজীপুর) প্রতিনিধিঃ মামলা-হামলা ও পুলিশের মাধ্যমে গ্রেফতারের হুমকি দিয়ে চাঁদাবাজির সময় ইয়াছিন নামে এক থানার দালালকে আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় জনতা।১৯ জুলাই বুধবার রাতে কাপাসিয়া উপজেলার রাওনাট বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

আটক ইয়াছিন উপজেলার রাওনাট গ্রামের দানিছ মীরের ছেলে।এলাকায় পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদাবাজি, ভয়-ভীতি দেখিয়ে জোর করে মানুষের কাছ থেকে টাকা আদায়, রাস্তা-ঘাটে হুমকি-ধমকি ইত্যাদি অভিযোগ তার বিরুদ্ধে।

তার অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকার মানুষ।কাপাসিয়া থানা পুলিশের সঙ্গে তার গভীর সখ্যতা রয়েছে এবং অন্যায়ভাবে আয়-রোজগারের বখরা পুলিশ ও কিছু অসৎ নেতা পাওয়ার কথা  এলাকার মানুষের মুখে মুখে চাউর হয়ে বেড়াচ্ছে।

রাওনাট বাজারের মাছ ব্যবায়ী শ্যামল জানান, ইয়াছিন ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত। সে প্রায়ই কৌশলে জেলেদের পকেটে ইয়াবা ট্যাবলেট ঢুকিয়ে দিয়ে পুলিশের ভয় দেখিয়ে টাকা আদায় করে।

দড়িমেরুন গ্রামের আরিফ আলীর ছেলে হযরত আলী বলেন, ইয়াছিন এ পর্যন্ত আমার কাছ থেকে ৪০ হাজার টাকা নিয়েছে।আরও টাকা চাইছিল। না দিলে মামলায় ফাঁসাবে বলে আমাকে হুমকি দেয়।

রাওনাট গ্রামের বাসিন্দা মতিউর রহমান বলেন, ১৮ জুলাই সন্ধ্যায়  আমার কয়েকজন মেহমান স্থানীয় আজিজুলের দোকানের পাশ দিয়ে আসার পথে দালাল ইয়াছিন তাদের গতিরোধ করে এবং তাদের কাছ থেকে ৩০০টাকা, এক বোতল ঠান্ডা  ও একটা সিগারেট তাদের কাছ থেকে আদায় করে তাদের মুক্তি দেয়।

রাওনাট বাজারের ব্যবসায়ী রতন জানান, টাকা না দিলে মামলা দিয়ে আমাকে জেলের ভাত খাওয়াবে বলে হুমকি দেয় ইয়াছিন। ভয়ে আমি গতকালও তাকে ৭০০টাকা দিয়েছি। এর আগে আমার কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা নেয়।

রাওনাট বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম আঙ্গুর বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে বলেন, দড়িমেরুন গ্রামের নারায়ন বর্মনের ছেলে রাম বর্মন ১৯ জুলাই সন্ধ্যায় রাওনাট বাজারে মাছ বিক্রি করে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন। এসময় ইয়াছিন রাম বর্মনকে আটকায় এবং তার কাছে টাকা দাবী করে। টাকা না দিলে তাকে গাজা ব্যবসায়ী বানিয়ে মামলা দিবে বলে ভীতি সঞ্চার করে। নিরীহ জেলে রাম ভয়ে তার সঙ্গে থাকা ২০০টাকা তাকে দিয়ে দেয়।এরপরও বিনা কারণে তাকে থানায় নিয়ে আসতে চাইলে এলাকার মানুষ টের পেয়ে এগিয়েে এসে ইয়াছিনকে আটক করে গণধোলাই দেয় স্থানীয় জনগণ।

সফিকুল ইসলাম আঙ্গুর আরও জানান, বাজার ব্যবসায়ী সমিতির পক্ষ থেকে ডাকবাংলোতে সাক্ষাৎ করে বঙ্গতাজ কন্যা সিমিন হোসেন রিমি এমপিকে ঘটনাটি অবহিত করা হয়েছে। এমপি মহোদয় ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দকে ন্যায় বিচারের আশ্বাস দিয়েছেন।

দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল গাফ্ফার জানান, আমি ঘটনাটি শুনে রাওনাট বাজারে যাই এবং পুলিশকে খবর দেই। রাত ১১ টার দিকে পুলিশ এসে ইয়াছিনকে আটক করে থানায় নিয়ে যান।

আটক ইয়াছিন জানান, রাস্তা থেকে ধরে নিয়ে শতাধিক লোক দলবদ্ধভাবে তাকে মারধর করেছেন। তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগগুলো সম্পর্কে কিছুই জানেন না বলে তিনি জানান।

কাপাসিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিক বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে জানান, ইয়াছিন পুলিশ হেফাজতে রয়েছে। ঘটনা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।পরবর্তীতে বিস্তারিত জানানো হবে।