জয়পুরহাটে বাকপ্রতিবন্ধী ছেলে পাওয়া গেছে

নিয়াজ মোরশেদ, জয়পুরহাট: আক্কেলপুরে দশ বছর বয়সী এক বাকপ্রতিবন্ধী ছেলে পাওয়া গেছে। ছেলেটির কথা বলতে পারে না। এ কারনে তার ঠিকনা জানতে পারেনি পুলিশ।

জানা গেছে, গত মঙ্গলবার রাত ৯ টার দিকে(৩ জানুয়ারী) উপজেলার পূর্ব মাতাপুর গ্রামের জাফর আলী জামালগঞ্জ রেল ষ্টেশন থেকে অটো রিক্সা করে বাড়িতে আসছিলেন। এসময় তার সাথে বাকপ্রতিবন্ধী ছেলেটির দেখা হয়। ছেলেঠি কথা বলতে না পারায় তিনি তাকে তার বাড়িতে নিয়ে যান। সেখানে দু’দিন রাখার পরেও ছেলেটির কোন সন্ধান না পাওয়ায় জাফর আলী রুকিন্দীপুর ইউপি চেয়ারম্যান আহসান কবিরকে বিষটি জানান। এর জাফর আলী চেয়ারম্যানের পরমর্শে বাকপ্রতিবন্ধী ছেলেটিকে আক্কেলপুর থানায় নিয়ে আসেন। থানা থেকে একটি পল্ট্রি দোকানের মালিক রফিকুল ইসলাম চপল ছেলেটিকে তার হেফাজতে রাখে সেখানে ছেলেটি দু’এক দিন থাকার পর আবারও সে হারিয়ে যায়। পরে তাকে নওগাঁ জেলার ধামইরহাট এলাকার একটি ইটের ভাটায় পাওয়া যায়। সেখান থেকে ওই ছেলেটিকে জাফর আলী আবারও আক্কেলপুর থানায় নিয়ে আসেন। বর্তমানে ছেলেটি জাফর আলীর হেফাজতে রয়েছে।

পূর্ব মাতাপুর গ্রামের জাফর আলী বলেন, আমি গত ৩ জানুয়ারী রাতে জামালগঞ্জ রেল ষ্টেশন থেকে বাড়ি আসার পথে বাকপ্রতিবন্ধী ছেলেটির সাথে দেখা হয়। ছেলেটির সাথে কথা বলতে চাইলে দেখী ছেলেটি বাকপ্রতিবন্ধী। পরে আমি তাকে আক্কেলপুর থানাতে নিয়ে যাই এবং ওসির সাথে কথা বলে আমি ছেলেটিকে আমার হেফাজতে রাখি। পরে সে আবারও হারিয়ে যায়। তখন তার জামার পকেটে থাকা আমার একটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের ভিজিটিং কার্ড রাখা ছিল। সেই কার্ডের নাম্বারে আমাকে নওগাঁ জেলার ধামইরহাট এলাকার একটি ইটভাটাতে কাজ করা শ্রমিক ফোন করেন। পরে সেখান থেকে ছেলেটিকে আবারও নিয়ে আসি। ছেলেটি শুধু ইশারা-ইঙ্গিতে উত্তর দিকে বাড়ির বোঝায়। পরে তাকে নিয়ে আমি ট্রেনে করে চিলাহাটি পর্যন্ত ঘুরিয়েছি যাতে সে নিজের শহরটি চিনতে পারে। এতেও কাজ না হলে আবারও আমি তাকে আমার বাড়িতে রেখেছি এবং তাকে আমি সব সময় দেখে রাখছি।  যোগাযোগ:০১৭২৬-৫৮৮৭১৫