পণ্য ও সেবার গুণগতমান নিশ্চিত করা অত্যন্ত জরুরি

স্টাফ রিপোর্টার : রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, ‘রূপকল্প’ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে পণ্য ও সেবার গুণগতমান নিশ্চিত করা অত্যন্ত জরুরি। বাংলাদেশকে ২০২১ সালে মধ্যম আয়ের এবং ২০৪১ সালে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে উন্নীত করার লক্ষ্যে ‘আন্তর্জাতিক মান’ অনুসরণ অপরিহার্য।

বিশ্ব মান দিবস উপলক্ষে এক বাণীতে রাষ্ট্রপতি এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, জাতীয় মান সংস্থা হিসেবে বিএসটিআই’কে পণ্যের মান প্রণয়ন ও উন্নয়নের মাধ্যমে নাগরিকদের কাছে পৌঁছে দিতে আরও দক্ষ, দায়িত্বশীল ও জবাবদিহিমূলক ভূমিকা পালন করতে হবে। বিএসটিআই জনগণের আস্থা পূরণের পাশাপাশি মানসম্পন্ন সেবা সকলের কাছে পৌঁছে দেবে- এটাই দেশবাসীর প্রত্যাশা।

সকলের জন্য নিরাপদ ও টেকসই বিশ্ব গড়তে ‘মান’-এর ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই) এর উদ্যোগে বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও বিশ্ব মান দিবস পালিত হচ্ছে জেনে ‘আমি আনন্দিত’। আন্তর্জাতিক মানসংস্থা (আইএসও) আইইসি ও আইটিইউ এবারের বিশ্ব মান দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করেছে ‘নান্দনিক নগরায়ণে মান’। রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে এবারের প্রতিপাদ্যটি অত্যন্ত সময়োপযোগী হয়েছে।

একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় ক্রমবর্ধমান জনগোষ্ঠীর জন্য সুপরিকল্পিত নগরায়ণের বিকল্প নেই উল্লেখ করে আবদুল হামিদ বলেন, সুপরিকল্পিত নগরায়ণের প্রথম এবং প্রধান শর্ত হলো নগরায়ণের প্রতিটি ক্ষেত্রে মান অনুসরণ করা। সকলের জন্য নিরাপদ ও টেকসই বিশ্ব গড়তে ‘মান’ এর ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মানই বিশ্বকে বৈচিত্র্যময় করে তুলেছে এবং জীবনযাত্রার মানোন্নয়নসহ পৃথিবীকে বিশ্বস্ততার বন্ধনে আবদ্ধ করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করছে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, আর্থ-সামাজিক নানা কারণে মানুষ আজ শহরমুখী হচ্ছে। ফলে নগরায়ণ এবং শিল্পায়ন সম্প্রসারিত হচ্ছে। সুন্দর নগরায়ণের জন্য প্রয়োজন যুৎসই পরিকল্পনার পাশাপাশি নাগরিক সুবিধা ও নির্মাণ মান নিশ্চিত করা। একটি সুপরিকল্পিত নগর গড়তে সংশ্লিষ্ট সকলের সম্মিলিত প্রয়াসই এ ক্ষেত্রে কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে। এ বছরের মান দিবস উদযাপন সে লক্ষ্য পূরণে কাজ করবে বলে রাষ্ট্রপতি বিশ্বাস করেন।

বিশ্ব মান দিবস উপলক্ষে গৃহীত কর্মসূচির সাফল্য কামনা করেন রাষ্ট্রপতি।