বদলগাছিতে কাগজে কলমে সারের ডিলার, বাস্তবে নেই!

নিয়াজ মোরশেদ. আক্কেলপুর(জয়পুরহাট) : নওগাঁর বদলগাছি উপজেলায় প্রতিটি ইউনিয়নে বিসিআইসির সারের ডিলার থাকলেও তা কাগজে কলমে রয়েছে বাস্তবে নেই বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সার ডিলারের ঘরে সার না থাকার কারনে চরাদামে বাজার থেকে সার কিনতে হচ্ছে কৃষকদের।

উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা যায়, উপজেলার কৃষকদের চাহিদা অনুযায়ী সল্প মূল্যে ও কৃষকদের দোরগোরায় সার সরবরাহ করার জন্য বর্তমান সরকার এই উপজেলায় ৮টি ইউনিয়নে বিসিআইসির অনুমোদিত ১০ জন সার ডিলার নিয়োগ করেছেন। এবং তা প্রত্যেক ইউনিয়নের প্রতান্ত অঞ্চলের কৃষকদের কাছে সার পৌছে দেওয়ার সুবিধার্থে ৮টি ইউনিয়নে মোট ৬৯ টি আইডি কার্ডধারী খুচরা সার বিত্রেুতা রয়েছে। বাস্তবে উপজেলার ১০ জন সার ডিলারের মধ্যে ৬ জন ডিলারের ঘরে সার থাকে আর বাঁকী ৪ জন ডিলারের ঘরে কোন সার থাকে না। তাদের বরাদ্ধের সার তুলে এলাকায় না নিয়ে এসে অন্যত্র এলাকায় সব খুচরা সার বিক্রেতার কাছে বিক্রি করে দেয়। যেসব ডিলারের ঘরে সার থাকে না তারা হলেন, মথুরাপুর ইউনিয়নের সুরকালী বাজারে তিন মাথা মোড়ে মেসার্স তালুকদার ট্রেডাস, কোলা ইউনিয়নের ভান্ডারপুর বাজারের জন্য মেসার্স শ্রী জিতেন্দ্রনাথ দাস , মিঠাপুর ইউনিয়নের জন্য মেসার্স মাসুক ট্রেডার্স এবং পাহাড়পুর ইউনিয়নের কৃষকদের জন্য মেসার্স হুমায়ন কবির।

কিছু আইডি কার্ডধারী খুরচা সার বিত্রেুতারা বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে বলেন, ডিলারেরা তাদের বরাদ্ধ কৃত সার লোক দেখানোর জন্য তাদের ঘরে দু’এক বার আনেন। আর তাদের বরাদ্ধের সব সারই তারা সব অন্য উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে বিক্রয় করে দেন । সুরকালী বাজারে তিন মাথা মোড়ে মেসার্স তালুকদার ট্রেডার্স অবস্থিত। সেই ঘরে মেসার্স জয় এন্টার প্রাইজ নামে আর একটি খুরচা সার ও কৃটনাশক বিক্রেতা অনাথ চন্দ্র সরকার বলেন, আমি কয়েক বস্তা সার বদলগাছি বাজার থেকে ক্রয় করে এনে বিক্রয় করছি । এখানে কোন ডিলারের সার নেই তারা এখানে কোন সার আনেন না তারা সব সার নওগাঁয় বিক্রয় করে দেন।

ফয়জাবাদ বাজারে খুচরা সার দোকানদার আব্দুল হামিদ বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে বলেন, আমার ঘরে যে কয়েক বস্তা সার দেখছেন সেই গুলো আমার দোকানের সার আমি একজন আইডি ভুক্ত কার্ডধারী খুরচা সার বিক্রেতা । এই সব সার কি আপনার ইউনিয়নের ডিলারের কাছ থেকে ক্রয় করেছেন বলে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন না এগুলো সার আমি অন্য জায়গা থেকে এনেছি । কেন ডিলার আপনাকে সার দেননা এমন প্রশ্নে তিনি বলেন ডিলাররা এখানে কোন সার আনেনা তাঁরা নওগাঁ থেকেই সব সার বিক্রয় করেদেন। এবং কৃষি অফিস কখনওতা মনিটরিং করে না।

মিঠাপুর ইউনিয়নের কিছু আইডি কার্ডধারী খুরচা সার বিত্রেুতারা বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে বলেন, আমাদের ইউনিয়নের ডিলার মাসুক ট্রের্ডাস এখানে কোন সার আনে না তাই আমরা বাধ্য হয়ে জয়পুরহাট ও আক্কেলপুর থেকে সার ক্রয় করে বিক্রয় করছি । আমরা কৃষি অফিসে অভিযোগ করেছি কোন লাভ হয়না ।কারন তারা তাদেরকে ম্যানেজ করেই এসব করেন। একই অবস্থা পাহাড়পুর ও কোলা ইউনিয়নের।

উপজেলার ২০-২৫ জন কৃষকরা অভিযোগ করে বলেন, নামে মাত্র আমাদের এলাকায় ডিলার নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে। আমরা এখানে ন্যায্য মুল্যে কখনো ডিলারদের ঘরে থেকে সার পাইনা কারন তাঁরা এখানে কোন সার আনেনা। এ কারনে একটু বেশী দাম দিয়ে খুচরা সার দোকানদারদের কাছ থেকে সার ক্রয় করতে হচ্ছে।

বদলগাছি সার ডিলার সমিতির সভাপতি মেসার্স জিতেন্দ্রনাথ মন্ডল প্রোপাইটর শ্রী জিতেন্দ্রনাথ মন্ডল এ বিষয়ে কোন কথা বলতে রাজি হননি।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসান আলী  বলেন, খুচরা সার বিক্রেতারা আমাকে এ বিষয়ে কোন অভিযোগ দেননি।তিনি আরও বলেন আমার জানামতে সব ডিলারদের ঘরে সার রয়েছে।