বিলুপ্ত শীতলপাটি রক্ষায় সরকারি উদ্যোগ

শীতলপাটি

স্টাফ রিপোর্টার : বৃটিশ রাজ প্রাসাদে স্থান পাওয়া শীতলপাটি শিল্পটি আজ বিলুপ্ত হতে চলেছে। এক সময়ে বালাগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী এই শীতলপাটিকে প্রাচীন মসলিন কাপড়ের সঙ্গে তুলনা করা হতো। কিন্তু ঐতিহ্যবাহী এ শিল্পটি নানা কারণে আজ ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে।

বিশেষ করে সিলেট অঞ্চলে নতুন বর-কনেকে শীতলপাটিতে বসিয়ে বরণ করা কিংবা দেশি-বিদেশি ভিআইপি মেহমানসহ সরকারের কর্তা ব্যক্তিরা সিলেট সফরে আসলে তাদের শীতলপাটি উপহার দেয়ার রেওয়াজ সেই অতীত কাল থেকে এখনও চালু আছে। কারু শিল্প হিসেবে স্বীকৃতি পেয়ে শীতলপাটি অর্জন করে বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার।

শীতলপাটির সেই সোনালী অতীতকে ফিরিয়ে আনতে সরকারিভাবে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এই শিল্পটিকে বাঁচিয়ে রাখতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রোগ্রাম এর সহযোগিতায় নতুন করে শীতল পাটি উৎপাদন ও বাজারজাতকরণে একটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে।

প্রকল্পের আওতায় শীতলপাটির অন্যতম কাঁচামাল মুর্তা উৎপাদন, পাটি তৈরির কারিগর ও ব্যবসায়ীদের নিয়ে সমিতি গঠনেরও উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। পাটি শিল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে মুর্তার বাগান তৈরি, উন্নত কারুকাজ সম্পর্কে ধারণা প্রদান, সহজ শর্তে ঋণ প্রদান, বাজার সৃষ্টি, উদ্যোক্তা তৈরির বিষয়ে উন্নত প্রশিক্ষণ প্রদান, স্থানীয়ভাবে কারখানা তৈরি, সরকারিভাবে প্রচার ও বিভিন্ন মেলায় সরকারিভাবে শীতলপার্টির স্টল দেয়ারও উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

সিলেট বিভাগীয় সমবায় অধিদফতরের যুগ্ম নিবন্ধক ও শীতলপাটি উন্নয়ন প্রকল্পের প্রধান মো. খোর্শেদ আলম বলেন, পাটি শিল্পকে স্থায়ীভাবে রূপ দেয়ার লক্ষ্যে স্থায়ীভাবে কারখানা করার পরিকল্পনা রয়েছে। পাটিগুলোর বিভিন্ন নামও রয়েছে যেমন-সিকি, আধলী, টাকা, নয়নতাঁরা, আসমানতাঁরা, জোড়া ও ছিড়া প্রভৃতি। নকশা করে বুননে বিভিন্ন কারুকাজ ফুটিয়ে তুলে এ ধরনের একটি পাটি সমবেতভাবে তৈরি করতে ৫-৬ মাস সময় লেগে যায়। ফলে একটু ভাল মূল্যে পাটিগুলো বিক্রি করতে চান বিক্রেতারা। আবার বিশেষ চহিদা অনুয়ায়ী তৈরি পাটিগুলোর বেশ চড়া দামে বিক্রি হয়।

বালাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এটিএম আজহারুল ইসলাম বলেন, শীতলপাটি শিল্পকে ঠিকিয়ে রাখতে সরকার আন্তরিক রয়েছেন। সরকারিভাবে পরিচালিত এই প্রকল্পের আওতায় শীতলপাটি শিল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের নিয়ে সমিতি গঠন করে সরকারিভাবে প্রশিক্ষণ প্রদান ও সহজভাবে ঋণ দেয়ার ব্যবস্থা করা হবে।