বিসিএস নির্বাচনে লড়ছেন তরুন উদ্যোক্তা এলাহান

বাংলাদেশ কম্পিউটার সোসাইটি(বিসিএস)

আইটি ডেস্কঃ কপি-পেষ্ট করতে না জানা ছেলেটি, মোঃ এলাহান উদ্দিন (Md. Alahan Uddin) এবার বাংলাদেশ কম্পিউটার সোসাইটি(বিসিএস) নির্বাচনে Joint Secretary (Admin) পদে লড়ছেন। তার প্যানেলের নাম  ‘আইসিটি প্রফেশনাল’ । কালের বিবর্তনে বিজ্ঞানের অসাধারণ আবিস্কার কম্পিউটার। তাই উৎসুক মানুষের মন জানতে চায় কম্পিউটার কি? বাদ যাননি লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার, চন্দ্রপুর ইউনিয়নের দুরন্ত বালক এলাহান উদ্দিন। মন বাধ সাজে কম্পিউটার কি জানতেই হবে। ইচ্ছে জাগে কম্পিউটার নিয়ে পড়াশুনা করার। প্রথমে কম্পিউটারে লেখা তো দুরের কথা কপি-পেষ্টও করতে পারতেন না । তাই মাধ্যমিকে  ৪র্থ বিষয়  কম্পিউটার নিয়েছিলেন,কিন্তু দুঃখের বিষয় স্কুলের কম্পিউটার ছিল অকেজো। কম্পিঊটার শেখাতো দুরের কথা,কম্পিঊটার ছুইতেই পারেন নি তিনি। বড় আসফোস নিয়ে শেষ করেছেন মাধ্যমিকের পড়াশুনা।

উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করে ঢাকায় প্রাইভেট ইউনির্ভাসিটিতে কম্পিঊটার সায়েন্স ও ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে ভর্তি হন। তখন একটু একটু কম্পিউটার জানেন । বাবার অনেক টাকাই নষ্ট করেছেন ।  তাই বাবার কাছে বার বার লেখাপড়ার টাকা চাইতে লজ্জা পেতেন। দ্বিতীয় সেমিস্টারে উঠার পরও নিজের কোন ল্যাপটপ ছিল না। ল্যাপটপ কিনবেন, এই কথা শুনে তার মেসের রুমমেটরা হাসি-ঠাট্টা করত। বাড়ীওয়ালার কাছে টাকা ধার নিয়ে ক্রয় করেছেন নিজের প্রথম ল্যাপটপ। ধারের সেই টাকা আউটসোর্সিং করে ও বাবার কাছে কিছু টাকা নিয়ে পরিশোধ করেছেন। নিজে নিজেই গুগল সার্চ এবং ইউটিউব এর মাধ্যমে ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলমেন্ট শেখেন । শুরু হয় নতুন করে পথ চলা।

জীবনের প্রথম চাকুরী করতে গিয়ে খেয়েছেন হোচট। চাকুরীর প্রথম দিনে যোগদান করার পর মাকে বলেছিলেন, শাড়ি কিনে দিবেন। কিন্তু প্রথম বেতনের টাকা দিয়ে মায়ের জন্য শাড়ি কেনার স্বপ্ন পূরণ হয়নি তার। কারণ, মাস শেষে পাননি বেতন। আশায় আশায় চার মাস চাকুরী করে খালি হাতে ফিরেছেন তিনি। কোম্পানির পরিচালক নানা তালবাহানায় বলতেন আপনি তো কোন কাজ ই পারেন না। কিসের বেতন? এরপরও হাল ছাড়েননি, লক্ষ্য তখন সামনের দিকে।

জয়েন করেন অন্য কোম্পানিতে। সেই কোম্পানিতেও বেশী দিন চাকুরি করা হয়নি তার। অফিসে মাত্র ৫ মিনিট দেরিতে আসায় বসের খারাপ ব্যবহারের মুখোমুখি হন। বসের ব্যবহার ভালো লাগে নি সহজ সরল ছেলেটির। তাই হতাশ হয়ে এই চাকুরিও ছেড়ে দেন তিনি।

এর পর নিজে উদ্যোগ নিয়ে চালু করেন জব ও সোসাল সাইট। কিন্তু টাকার অভাবে বড় সার্ভার কিনতে না পারায় জব ও সোসাল সাইট বন্ধ হয়ে যায় কিছু দিনের মধ্যে।

ছেড়ে দেবার পাত্র নন তিনি। তাই ভাবলেন চাকুরি করে কিছু টাকা জোগাড় করে আবার এই পথে ফিরবেন।

এরপর জয়েন করেন  সিম্ফনি সফট-টেক নামের একটি কোম্পানিতে। সেখানেও স্বপ্ন প্রদিপ নিভে যায় তার। সিম্ফনি সফট-টেকে ৬ মাস চাকুরী করেন। কোম্পানির ক্রাইসিসে চাকুরী হারান তিনি। মুখে হতাশার ছাপ আর ব্যর্থ হবার অভিজ্ঞতা তাকে পিছনে তাকাতে দেয়নি।

এরপর তিনি নিজের এবং ছোট বেলার বন্ধুর কাছে টাকা নিয়ে তৈরি করেন ছোট মূলধন। ২০১২ সালে শুরু করেন হোস্টিং ও সফটওয়্যার ব্যবসা। এখানেই ধরা দেয় ওঁত পেতে থাকা সাফল্য। তার আইটি ফার্ম  হোস্ট কোডিং কর্পোরেশন (Hostcoding Corporation) আস্তে আস্তে বড় হতে থাকে। এরপর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি তার। সমস্যা হয়নি মায়ের জন্য শাড়ি কিনতেও।

বর্তমানে এলাহান উদ্দিন আইসিটি, মিডিয়া ও ভার্চুয়াল শিক্ষা নিয়ে কাজ করছেন এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে “কম্পিউটার সায়েন্স এবং ইঞ্জিনিয়ারিং” বিভাগে  এম.এস.সি করছেন। এর পাশাপাশি ঢাকা আহছানিয়া মিশনের সফওয়্যার ফার্মে (আহছানিয়া ই-সল্যুউশন) ওয়েব ডেভেলপার  হিসাবে কর্মরত আছেন এবং হোস্টকোডিং এর প্রজেক্ট ডিরেক্টর। এছাড়াও অবসর সময়ে, তিনি দেশের কয়েকটি জাতীয় পত্রিকায় আইসিটি বিষয়ক লেখালেখি করেন ।

এছাড়াও তিনি একজন নাট্যকার এবং  অভিনয়েও পারদর্শী । ‘ মিসডকল’ সিনেমায় মিশা সওদাগরের সঙ্গে সাদা ডাক্তার (কমেডি) চরিত্রে অভিনয় করেছেন । কয়েকটি নাটকেও অভিনয় করেছেন তিনি। যে গুলো বাংলাদেশের বিভিন্ন টিভি চ্যানেল প্রচার করেছে।

এবার কাজের পরিধি বাড়িয়ে কাজ করতে চাচ্ছেন বাংলাদেশ কম্পিউটার সোসাইটিতে। সে জন্য তিনি  আইসিটি প্রফেশনাল প্যানেল থেকে Joint Secretary (Admin) Candidate পদে নির্বাচনে অংশগ্রহন করেছেন। তারপদে আরো ৫ জন প্রতিদ্বন্দ্বী রয়েছে। নির্বাচন আগামী ২২ শে ডিসেম্বর ২০১৭ তে অনুষ্ঠিত হবে ।

বাংলাদেশ কম্পিউটার সোসাইটিতে এসেছেন কিছু লক্ষ্য নিয়ে কাজ করতে।

সরকারি-বেসরকারি সকল রিক্রুটম্যান্টরুলসে ICT Graduate দের প্রাধান্য নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা, তথ্য প্রযুক্তিবিদদের স্বতন্ত্র আইসিটি ক্যাডার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা, বেসরকারি চাকুরীজীবিদের জন্য ICT প্রতিষ্ঠান গুলোর সাথে ক্রমাগত যোগাযোগের মাধ্যমে একটি সম্মানজনক Minimum Salary এবং চাকুরীর পরিবেশ ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, তথ্য প্রযুক্তি পেশাজীবিদের সুবিধার্থে বিসিএসে একটি কমপ্লেইন ম্যানেজম্যান্ট সেল গঠন করা, যেন কোন পেশীজীবিদের বিনা নোটিশে চাকুরীচ্যুত না হয় এবং সেই সমস্ত কোম্পানির লিস্ট করে সরকারের সহযোগিতায়, প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা করা।

এসব ব্যপারে এলাহান উদ্দিনের সঙ্গে কথা বললে তিনি বলেন, মানুষের ইচ্ছা মানুষকে নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছয়ে দেয়। আমিও জীবনে অনেক হোঁচট খেয়েছি। হতাশও  হয়েছিলাম। তবে ভেঙ্গে পড়িনি। লক্ষ্য ছিল সামনের দিকে। জীবনে চলারপথে অনেক মানুষ আমাকে সহযোগিতা করেছেন। তাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। মানুষের সাহায্য ছাড়া কোন মানুষ উন্নতির শিখোরে পৌঁছতে পারে না। এবার আমি বাংলাদেশ কম্পিউটার সোসাইটিতে আইসিটি প্রফেশনাল প্যানেল থেকে Joint Secretary (Admin) Candidate পদে নির্বাচনে অংশগ্রহন করেছি। আশা করি এখানেও আমার পরিচিত এবং অপরিচিত সকলেই আমাকে সাহায্য করবেন। অনেকের সঙ্গে আমার এখনো পরিচয় হয়নি। তবে সামনে অবশ্যই হবে। আপনারা সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন। আর যারা ভোটার তারা অবশ্যই আমাকে সহযোগিতা করবেন।