ভালুকার সব খবর

ভালুকায় জেএমবি সদস্য আটক

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার জামিরদিয়া এলাকা থেকে সোমবার রাতে ময়মনসিংহ ডিবি পুলিশের একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে অভিযান চালিয়ে তারেক মোহাম্মদ (২২) নামের এক যুবককে জেএমবি সন্দেহে আটক করে। এ ঘটনায় ডিবি পুলিশ বাদী হয়ে ভালুকা মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছে মামলা নং-(৩০) তাং-২০/১১/১৭ইং।
জানা যায়, ময়মনসিংহ ডিবি পুলিশের একটি বিশেষ দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার জামিরদিয়া এলাকায় চেকপোস্ট বসিয়ে বাসে তলাশি করার সময় ময়মনসিংহ সদরের ভুরুরচড় কুষ্টিয়া পাড়া এলাকার বাসিন্দা আফতাব উদ্দিনের ছেলে তারেক মোহাম্মদ গাড়ি থেকে নেমে দৌড়িয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় ডিবি পুলিশ তাঁকে আটক করে। পুলিশ তাঁর কাছ থেকে কিছু জেহাদি বই উদ্ধার করে। ডিবি পুলিশ দাবি করছে তারেক মোহাম্মদ জেএমবির সক্রিয় সদস্য।
এ ঘটনায় ডিবি পুলিশের এস,আই পরিমল বাদী হয়ে ভালুকা মডেল থানায় নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন সক্রিয় করার অপরাধে একটি মামলা দায়ের করেছে।
ডিবি পুলিশের এস,আই পরিমল জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জেএমবির সক্রিয় সদস্য তারেক মোহাম্মদকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ভালুকায় জমিদখলের উদ্দেশ্য গ্রামবাসীর উপর হামলা ৬ নারীসহ ১০জন আহত

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার পাড়াগাঁও গ্রামে ইন্তেখাবুল হামিদ চৌধুরী অপুর স্থানীয় ভূমিদস্যু দালাল হাজী সালাহ উদ্দিনের নেতৃত্বে গত সোমবার সন্ধ্যায় নিরীহ কৃষকের জমিতে রাতের আঁধারে ট্রাক্টর দিয়ে হাল চাষ করে এবং পাথরের পিলার পুঁতে কাঁটাতারের বেড়া দেয়। পরে মঙ্গলবার সকালে ওই কাটা তারের বেড়া ও পিলার স্থানীয় গ্রামবাসী ভেঙে ফেলে। এ নিয়ে গ্রামবাসী ও বাড়ি ঘরের উপর সালাহ উদ্দিনের সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনীর হামলায় ৬ নারীসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়। এ ঘটনায় এলাকার নারী পুরুষ একত্রিত হয়ে উপজেলা নির্বাহি অফিসে এসে হামলাকারীদের বিচার দাবী করেন।
জানা যায়, সোমবার সন্ধ্যায় সিদ্দিকের জমিতে ট্রাক্টর দিয়ে হাল চাষ করে গভীর রাতে পাথরের পিলার পুঁতে কাঁটাতারের বেড়া দেয়। মঙ্গলবার সকালে ওই কাটা তারের বেড়া ও পিলার স্থানীয় গ্রামবাসী ভেঙে দেয়। এ সময় সালাহ উদ্দিন ও হানিফ ড্রাইভারের সশস্ত্র লোকজন বিভিন্ন বাড়িঘরে হামলা চালায়। ওই সময় নারী পুরুষ ও শিশুরা দিগবিদিগ ছুটাছুটি করে আতœরা করে। হামলায় ওই গ্রামের নূরুল ইসলামের স্ত্রী বৃদ্ধা মোমেনা খাতুন (৬০), নাজিম উদ্দিনের স্ত্রী শিরীনা আক্তার (৪০), আব্দুর রশিদের স্ত্রী সুফিয়া খাতুন (৫৫) আবু বকর সিদ্দিকের স্ত্রী নিলুফা আক্তার (২৮) ছফির উদ্দিনের স্ত্রী রিপা আক্তার (২৮) ও ফজলুল হকের স্ত্রী জোসনা (৫০)। স্থানীয় গ্রাম বাসী ফরিদ মিয়া দাবী করেন সন্ত্রাসীরা আব্দুর কাদির ও আব্দুর রশিদের বড়িতে হামলা করে লুটপাট ও ভাংচুর করে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার দুপুরে এলাকার নারী পুরুষ একত্রিত হয়ে উপজেলা নির্বাহি অফিসে এসে হামলাকারীদের বিচার দাবী করেন।
এ সময় ঘটনায় গত সোমাবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ কামাল, সহকারী কমিশনার (ভূমি) দীপায়ন দাস শুভ, ভালুকা মডেল থানার অফিসার্স ইনচার্জ মামুন অর রশিদ হাবিরবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান তোফায়েল আহাম্মেদ বাচ্চু ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরে দু’পকে নিয়ে ভালুকা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে বসেন। জমির মালিকদেরকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর আবেদন করতে বলেন। এর মাঝে সালাউদ্দিন বাহিনী তার লোকজন নিয়ে জমিতে পাথরের পিলারের পুঁতে কাঁটাতারের বেড়া দেয়।
আব্দুর কাদির বলেন,আরওআর রেকর্ড সূত্রে আমরা জমির মালিক বর্তমানে আমাদের নামে জমা খারিজ রয়েছে এবং জমির খাজনাও দিচ্ছি। কোম্পানির মালিক যদি জমি নিতে চায় তাহলে আমাদেরকে উপযুক্ত মূল্য দিয়ে জমি ক্রয় করে নিয়ে যাক। রাতের আধারে জোরপুর্বক সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে জমিতে কেন কাঁটা তারের বেড়া দিতে হয় ? এবং কেনই বা ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে আমাদের উপর হামলা করা হয়।
সালাহউদ্দিন বলেন, ইউএনও সাহেব সরেজমিনে তদন্ত করে উভয় পকেই স্থিতিঅবস্থায় থাকতে বলেছেন। আমার লোকজন আজকে আম ও লেবু বাগানে পানি দিতে গেলে তাদের উপর হামলা চালায় স্থানিয়রা।
ভালুকা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মামুন অর রশিদ জানান, সকাল বেলা উত্তেজনার খবর পেয়ে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ কামাল বলেন, আমি জমির মালিকদেরকে বলেছি তাদের দলিলপত্রাধি সহ আমার কাছে একটি অভিযোগ দাখিল করতে। আমি দুইদিনের মধ্যে বিষয়টি নিষ্পত্তি করার ব্যবস্থা করবো।
উল্লেখ্য গত শনিবার রাতে সালাহউদ্দিন, হানিফ, প্রজেক্ট ম্যানেজার শাহীন ও দ্বীপকের নেতৃত্বে দেশীয় অস্ত্রস্বস্ত্র নিয়ে পাহাড়া বসিয়ে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের ২৩৮ নং ও ২৮৯ নং দাগে আব্দুর রশিদ ও সিদ্দিকুর রহমানের দুই বিঘা জমি ও ৫০ বছর যাবত ব্যবহৃত সরকারী রাস্তার দুই জায়গায় সিমেন্টের পিলার ও কাটা তারের ভেড়া দেয়। সকাল বেলা স্থানীয় নারী,পুরুষ সম্মেলিত ভাবে কাটার তারের বেড়া ভেঙে ফেলে গ্রামের নারী পুরুষরা ঝাড়– ও লাঠি সুটা নিয়ে সিডস্টোর-সখিপূর সড়কের রানার অটো মোবাইলসের কাছে রাস্তা প্রায় ৩ ঘন্টা অবরোধ করে রাখে।

ভালুকায় শ্রমিকলীগ অফিস ভাংচুর

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার ৩নং ভরাডোবা ইউনিয়ন শ্রমিকলীগ অফিস মঙ্গলবার সকালে ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় জাতীরজনক বঙ্গবন্ধুর ছবি ও অফিসের চেয়ার টেবিল ভাংচুর করা হয়।
জানা যায়,ভরাডোবা ইউনিয়ন শ্রমিকলীগের সাবেক কমিটির সভাপতি মানিক ও সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রানা ও বর্তমান কমিটির সভাপতি মজিবুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক খাইরুল ইসলামের মাঝে দ্বন্দের জের হিসাবে নতুন কমিটির সহ-সাধারণ সম্পাদক আমির হামজার নেতৃত্বে মঙ্গলবার সকালে শ্রমিকলীগ অফিসে স্থানীয় অট্রোচালকদের সাথে কথা কাটাকাটি হয়, এক পর্যায়ে অফিসের চেয়ার ও বঙ্গবন্ধুর ছবি ভাংচুর করে। এ সময় হামলায় মজিবর ও খাইরুল আহত হয়। আহতদের মাঝে মজিবরকে প্রথমে ভালুকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপক্সে ও পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় দুই পই ভালুকা মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।
সাবেক কমিটির সহ সভাপতি জুয়েল জানান, জামাত নেতা আমির হামজাকে তাদের স্ব-ঘোষিত কমিটির সদস্য করে। আমির হামজার নেতৃত্বেই বঙ্গবন্ধুর ছবি ও কয়েকটি চেয়ার ভাংচুর করে।
ভালুকা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মামুন অর রশিদ জানান, দুই পই দুটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগ দুটি তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি