ভালুকায় বন বিভাগের ভূমি কৌশলে হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ

বন বিভাগ

ভালুকা (ময়মনসিংহ) থেকে তমাল কান্তি সরকার: ময়মনসিংহের ভালুকায় বন বিভাগের ভূমি কৌশলে হাতিয়ে নেয়ার উদ্দেশ্যে এক কোম্পানীর বিরুদ্ধে বনবিজ্ঞপ্তিত নিচুজমিতে মাটি ফেলে ভরাট কারার অভিযোগ উঠেছে। খবর পেয়ে বনবিভাগের লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়ে বাঁধা দিলে ভরাট কাজ বন্ধ করা হয়। ঘটনাটি উপজেলার জামিরদিয়া মৌজার মাস্টারবাড়ি এলাকায়।

বনবিভাগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার জামিরদিয়া মৌজার ৮৫ নম্বর দাগে ৩০ একর জমি রয়েছে। যার পুরোটাই বনবিজ্ঞপ্তিত। বিভিন্ন সময় এন,আর গ্রুপের স্থানীয় আরিফ স্পিনিং মিল কর্তৃপক্ষ এনআরজি কম্পোজিট ইয়ার্ণ ডাইং মিলের নামে ওই দাগে বিপুল পরিমান বনবিভাগের জমি দখলে নিয়ে সীমাণাপ্রাচীরসহ স্থাপনা নির্মাণ শুরু করে। সীমাণা প্রাচীর নির্মাণকালে বনবিভাগ বেশ কয়েকবার বাঁধা দেয়। তারপরও কোম্পানী তাদের কাজ অব্যাহত রাখে এবং বর্তমানে ডাইং কারখানার কাজ শুরু করেন। তবে কোম্পানী পরিবেশ অধিদপ্তরের নিয়মকানুনের তোয়াক্কা না করে ইটিপি প্ল্যান্ট বন্ধ রেখে উৎপাদন কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

এদিকে বেশ ক’দিন ধরে ওই দাগে প্রায় দুই একর নিচুজমি ভ্যাকো দিয়ে ভরাট শুরু করে কোম্পানী কর্তৃপক্ষ এবং ওই জমি দেখিয়ে ব্যাংক থেকে মোটা অঙ্কের টাকা উত্তোলনের জন্য ব্যাংকের লোকজন এনে পরির্দশণের কাজ করছিল। খবর পেয়ে ১০ আগষ্ট বৃহস্পতিবার দুপুরে ভালুকা রেঞ্জের হবিরবাড়ি বিট কর্মকর্তা মো: হাফিজুর রহমান সঙ্গীয় লোক নিয়ে মাটি ভরাট কাজে বাঁধা দেন।

এ ব্যাপারে মিলের জিএম কর্ণেল (অব:) বছির আহমেদ বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে জানান, আমি নতুন যোগদান করেছি। বিষয়টি আমার জানা ছিল না। খোঁজ নিয়ে কাগজপত্র ঠিক করেই কাজ শুরু করা হবে।

বিট কর্মকতা মো: হাফিজুর রহমান জানান, ৮৫ নম্বর দাগে ৩০ একর জমি রয়েছে এবং যার পুরোটাই বনবিজ্ঞপ্তিত। বনবিভাগের জমি দখল করে প্রাচীর ও স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগে বার বার বাঁধা দেয়া হচ্ছে। ঘটনার দিন বনবিভাগের নিচুজমিতে মাটি ফেলে ভরাটের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে কাজে বাঁধা দেয়া হয়েছে এবং তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যাবস্থা নেয়া হচ্ছে।