যশোর রোডে গাছ কাটার ওপর আদালতের স্থগিতাদেশ

গাছ

স্টাফ রিপোর্টার: যশোর রোডে বহু প্রাচীন গাছ কেটে ফেলে যখন রাস্তা চওড়া করার পরিকল্পনা হচ্ছে আর তা নিয়ে বিরোধীতা করছেন পরিবেশবিদরা, তার বেশ কিছুদিন আগে পশ্চিমবঙ্গের দিকেও ওই রাস্তায় শতাব্দী প্রাচীন গাছগুলি কেটে ফেলে রাস্তা চওড়া করার পরিকল্পনা নিয়েছিল সেখানকার সরকার।

কিন্তু পরিবেশবাদী এবং স্থানীয় মানুষের বিরোধীতায় বিষয়টি এখন আদালতে পৌঁছিয়েছে। গাছ কাটার ওপরে জারি হয়েছে স্থগিতাদেশ।

গাছগুলিকে না কেটেই রাস্তা যশোর রোড চওড়া করা যেতে পারে বলে মত পরিবেশবিদ ও স্থানীয় মানুষের। তারা এই কয়েক হাজার গাছকে ঐতিহ্যশালী তকমা দেওয়ারও দাবী জানিয়েছেন।

দমদম বিমানবন্দরের পরে বারাসাত শহর ছাড়িয়ে কিছুটা এগোলেই যশোর রোডের ওপরে ছাতার মতো বিছিয়ে থাকে কয়েক হাজার প্রাচীনগাছের পাতা – ডালপালা। এই রাস্তা তৈরী হওয়ার পর থেকে একসময়ে গোটা রাস্তাতেই গাছের ছায়া থাকত.. কিন্তু নগরায়নের জন্য আগেই কেটে ফেলা হয়েছে অনেক গাছ।

তবুও পেট্রাপোল স্থল বন্দর অবধি রয়েছে চার হাজার ৩৬টি গাছ, সেগুলিকে মহীরূহ বলাটাই শ্রেয়।

আবার যশোর রোড চওড়া করার দাবীও অনেকদিনের – যাতে বারাসাত থেকে বনগাঁ পর্যন্ত গাড়ির যাতায়াত আর পেট্রাপোল সীমান্ত দিয়ে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য সহজতর হয়ে ওঠে।

সেই জন্যই পশ্চিমবঙ্গ সরকার পরিকল্পনা করেছিল গাছগুলি কেটে ফেলে চওড়া হবে রাস্তা।

কিন্তু বনগাঁর বাসিন্দা অজয় মজুমদারের মতো কিছু মানুষ বিরোধীতা শুরু করেন। মামলাও দায়ের হয়।

মজুমদার সাংবাদিকদের বলছিলেন, “আমরা কখনই রাস্তা চওড়া করার বিরোধী নই। আমরা শুধু বলেছিলাম গাছগুলোকে না কেটে পাশ দিয়ে রাস্তা হোক। বাঁধানো রাস্তা তো মিটার পাঁচেক, কিন্তু তার পাশে আরও প্রায় কুড়ি মিটার মতো জমি রয়েছে। যেভাবে সীমান্তের কাছে ভারতের দিকে শেষ দু কিলোমিটার রাস্তা হয়েছে – মাঝখানে গাছও আছে, আর পাশে রাস্তাও হয়েছে – সেভাবেই পরিকল্পনা করা যায়। সেটা আমরা হাইকোর্টকেও জানিয়েছি।”

পুরো রাস্তা চওড়া করার পরিকল্পনার বদলে প্রথমে যশোর রোডের ওপরে ৫টি উড়ালপুল তৈরীর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তার জন্য প্রায় সাড়ে তিনশো গাছ প্রথমেই কাটতে হবে।

ভারতের আইন অনুযায়ী কোনও উন্নয়নমূলক প্রকল্পের জন্য গাছ যদি একান্ত কাটতেই হয়, তাহলে প্রতিটি গাছের বিকল্প পাঁচটি করে গাছ লাগাতে হবে।

মজুমদার এবং কয়েকটি সংগঠনের করা মামলার ভিত্তিতে হাইকোর্ট খতিয়ে দেখতে বলে, যে গাছ কাটা হলে আইন অনুযায়ী প্রতিটি গাছের জন্য পাঁচটি করে গাছ লাগানোর জায়গা আছে কী না।

তবে মামলাকারী সংগঠনগুলির অন্যতম, এ পি ডি আরের নেতা মানস দাসের কথায়, সেই বৃক্ষরোপনের সেই বিকল্প জায়গা দেখাতে পারেনি সরকার।

“বারাসাত থেকে বনগাঁ পর্যন্ত চারদিন ধরে হাইকোর্ট নিযুক্ত কমিটি রাস্তার সার্ভে করেছিল। তখন সরকার যে বিকল্প গাছ লাগানোর জায়গা দেখিয়েছে, সেগুলো যে উপযুক্ত জায়গা নয়, তা কমিটির রিপোর্টেই আছে,” বলছিলেন দাস।

দাস জানাচ্ছিলেন, গাছ না কাটার আবেদন জানানোর সঙ্গেই তাঁরা আদালতের কাছে এই আর্জিও জানিয়েছেন যে দেড়শো বছরেরও প্রাচীন ওই গাছগুলিকে হেরিটেজ বলে ঘোষণা করা হোক।

পরিবেশবিদ সুভাষ দত্ত-ও মনে করেন যশোর রোড শুধু একটা রাস্তা নয় – এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে ইতিহাস আর ঐতিহ্য।

“আগে যখন আমরা পেট্রাপোল সীমান্ত অবধি যেতাম, গোটা রাস্তার ওপরে তাঁবুর মতো হয়ে থাকত গাছগুলো। আসলে গাছের তো ভোটাধিকার নেই, তাই ওগুলো কেটে ফেলার সিদ্ধান্ত নেওয়াটা খুব সহজ। কিন্তু কোনও রাজনৈতিক দলই চায় না যে ভোট দেয় যারা – সেই জবরদখলকারীদের সরিয়ে ভোটব্যাঙ্কের ক্ষতি করতে। অথচ রাস্তা চওড়া করার জন্য বিকল্প ব্যবস্থা করাই যেত। যশোর রোড তো নিছক কোনও রাস্তা নয় – এর পেছনে রয়েছে ইতিহাস, ঐতিহ্য। সেটা রক্ষা করতে পারলে পৃথিবীর কাছে একটা উদাহরণ হয়ে উঠত,” বলছিলেন সুভাষ দত্ত।

তবে উত্তর চব্বিশ পরগণার জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলছিলেন, ৫টি উড়ালপুলের জন্য যে গাছ কাটা পড়বে, তার বিকল্প বৃক্ষায়ণের জন্য জায়গা তৈরী আছে। যেসব এলাকায় দখলদার হঠাতে হবে, তাদের জন্যও বিকল্প ব্যবস্থা করেছে সরকার।

“আমাদের সরকার উচ্ছেদ করে কোনও উন্নয়নমূলক পরিকল্পনা করবে না – এটাই নীতি। তাই যাদের দোকানপাট রয়েছে রাস্তার ধারে, তাদের কয়েকটা জায়গায় বাড়ী তৈরী করে দেওয়া হবে। আর বিকল্প হিসাবে যে গাছ লাগানোর কথা, সেই জায়গাও আমাদের তৈরী রয়েছে। কিছু পরিবেশবিদ আর এন জি ও এই কাজে বাধা তৈরী করার চেষ্টা করছে,” বলছিলেন মল্লিক।

মন্ত্রী এটাও জানালেন যে, প্রথমে ৫টি উড়ালপুলের পরিকল্পনা তৈরী হলেও এরপরে বারাসাত থেকে পেট্রাপোল পর্যন্ত প্রায় ৭০ কিলোমিটার রাস্তা গোটাটাই ৪ লেনের রাস্তা হবে – এবং তার জন্য প্রায় চার হাজার গাছ কাটতে হবে।