যৌনকর্মীরাও এখন সাংবাদিক!

সাংবাদিকের কলম অশির চেয়ে শক্তিধর। এ শক্তিধর কলম নিয়েও চলছে প্রতারণা। ভালুকায় আনাছে কানাছে সম্প্রতি কিছু মহিলা প্রতারক ভূয়া সাংবাদিক নেমেছে । এরা নির্বাচন এলেই ওই সব এলাকায় গিয়ে প্রার্থীদের সাক্ষাৎকারের কথা বলে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়।খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এরা সবাই যৌনকর্মী। এসব মহিলারা সাংবাদকর্মী পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন অসামাজিক কার্ষকলাপ করে থাকে ।

এ ধরণের সাংবাদিক যে কেবল ভালুকায় দেখা যায়, বিষয়টা তেমন নয়। বাংলাদেশের সব জায়গায় অনেক যৌনকর্মী হালে সাংবাদিক বনে গেছে। সবখানে দাবিয়ে বেড়ায় এরা।বিশেষ করে প্রশাসনের ক্যাডার, জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিক, ব্যবসায়ীদের সাথে সখ্যতা গড়ে তোলে অন্তরালে … করাই তাদের সাংবাদিকতা।তাদেরকে চিহ্নিত করতে হবে।

এসব প্রতারকদের হাত থেকে এলাকাবাসী ও যুব সমাজকে রক্ষা করতে হবে। একই সঙ্গে প্রকৃত নারী সাংবাদিকের যথাযথ মূল্যায়ন করতে হবে, সম্মান দিতে হবে, নিরাপত্তার বিধান করতে হবে।সাংবাদিকতায় নবীন পুরুষ কিংবা মহিলা যেই আসুক প্রবীনরা তাদের সঠিক দিকনির্দেশনা প্রদান করে প্রকৃত সাংবাদিক হিসেবে গড়ে তোলবে এটাই তো প্রবীনদের কাজ। কিন্ত নবীনদের ছুড়েফেলা ঠিক হবে না।

নবীনদের উৎসাহিত করতে হবে। গাইড দিতে হবে।তা না করলে  মফস্বলে একদিন সাংবাদিক শূন্য হয়ে পড়বে। তাই নবীনদের ভালবাসুন এবং সুশিক্ষায় সঠিক দিকনির্দেশনা প্রদান করুন।তাহলে কোনো যৌনকর্মী রাতারাতি সাংবাদিক হতে পারবে না অথবা কোনো সাংবাদিক যৌনকর্মী হতে পারবে না এটা আমার দৃঢ় বিশ্বাস।

– তমাল কান্তি সরকার, ভালুকা, ময়মনসিংহ