কাপাসিয়ায় সরকারি গাছ বিক্রি করায় প্রধান শিক্ষককে শোকজ

সরকারি গাছ

কাপাসিয়া (গাজীপুর) প্রতিনিধি: গাজীপুরের কাপাসিয়ায় দরপত্র ছাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের গাছ বিক্রয়ের অভিযোগে প্রধান শিক্ষককে শোকজ করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাকসুদুল হক বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাতটার পর মুঠোফোনে বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, প্রশাসনকে না জানিয়ে গাছ বিক্রয় করায় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মাসুদা বেগমকে শোকজ করা হয়েছে। শোকজের অনুলিপি হাতে না আসায় বিস্তারিত বলা যাচ্ছে না। তবে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হচ্ছে।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা (টিও), দুজন সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা (এটিও), সমবায় কর্মকর্তা ও একজন বন কর্মকর্তাকে কমিটির সদস্য করা হচ্ছে। তাদের সুষ্ঠু তদন্তের পর তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হবে। আর তদন্তে ঘটনার সত্যতা মিললে রেগুলার মামলা হবে বলেও জানান তিনি।

এর আগে বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার সদর ইউনিয়নের ১০৩ নং পাবুর সংলগ্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদ ও প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দরপত্র আহ্বান ছাড়া গাছ বিক্রয়ের অভিযোগ উঠে।

এলাকা সূত্র জানায়, বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদ ও প্রধান শিক্ষক কোন দরপত্র আহ্বান না করে দুটি মেহগনি গাছ, দুটি কাঁঠাল গাছ এবং একটি কড়ই ও একটি মেহগনি গাছের ডাল-পালা স্থানীয় কাঠ ব্যবসায়ী মোশারফ হোসেনের কাছে সাত হাজার টাকার বিনিময়ে বিক্রয় করেন।

তবে কাঠ ব্যবসায়ী মোশারফ হোসেন বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে বলেন, দুইটি গাছের কান্ড, পল্লী বিদ্যুৎ গুঁড়ি থেকে কেটেছে এমন দুইটি কাঁঠাল গাছ। আর ছোট দুটি মেহগনি গাছ ও কিছু লাকড়ি সাত হাজার টাকায় কিনেছি। গাছগুলো বিদ্যালয় সংলগ্ন সড়কের পাশ থেকে কাটা হয়েছে। গাছের ওপর দিয়ে পল্লী বিদ্যুতের তার রয়েছে। গাছগুলো  প্রধান শিক্ষিকা মাকসুদা আমার কাছে বিক্রয় করেছেন। টাকা দিয়েছি প্রধান শিক্ষকের হাতে।

বিদ্যালয়ের গাছ কাটার পর বিজ্ঞাপন চ্যানেল সহ কয়েকটি মিডিয়া সর্বক্ষণ বিষয়টির ওপর নজর রেখেছে। সেই সাথে স্থানীয় প্রশাসনও ঘটনা জেনে তাৎক্ষণিক বিদ্যালয় পরিদর্শনের পর বিভিন্ন পক্ষের সাথে আলোচনা শেষে ওই সিদ্ধান্ত নেয়।