সাতক্ষীরায় পানি ফল চাষে ভাগ্য বদলাচ্ছে শতাধিক পরিবারের

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরা-কালিগঞ্জ সড়কের ধারে পানি ফল চাষে সংসার চলে শতাধিক পরিবারের। দেবহাটা বাজার থেকে কালিগঞ্জ অভিমুখে রাস্তার পাশে টেবিল নিয়ে পানি ফল ব্যবসায় রয়েছে মহিলারাও।

পানি ফল কিনছেন চিকিৎসক, শিক্ষক, শ্রমিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। আয়ও হচ্ছে বেশ। আর সে আয় দিয়ে ভালো ভাবেই সংসার চলছে এসব মানুষের।

শনবিার সকালে দেবহাটার চাঁদপুরের ডেলটা মোড় এলাকায় রাস্তার ধারে পানি ফল বিক্রিকালে চাঁদপুর গ্রামের আলী বক্স সরদারের ছেলে শহিদ সরদার বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে জানান, পানি ফল বিক্রি করে মোটামুটি ভালো লাভ হচ্ছে। পানি ফল চাষীদের কাছ থেকে কেজি প্রতি সাড়ে ৭টাকা দিয়ে কিনে আমরা ১০ টাকা কেজি বিক্রি করি। সকালে আমি একশ কেজি কিনেছিলাম। তিন কেজি অবশিষ্ট রয়েছে বাকি সব বিক্রি হয়ে গেছে।

পানি ফল স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী তাছাড়া শরীর ঠান্ডা রাখে, খেতেও সুস্বাদু এজন্য আমি ২২ কেজি পানি ফল কিনলাম। কিছু বাড়িতে নিয়ে যাব আর পরিচিতদের দিতে হবে তারা নিতে বলেছেন। পানি ফল ক্রয়কালে একথা বলেন খুলনার শিববাড়ি মোড় এলাকার জুলহাস।

অপর এক বিক্রেতা শাহিদা বেগম জানান, পানি ফল বিক্রি করতে কষ্টও কম হয়। কারো ডাকতেও হয় না। ক্রেতারা এসেই প্রয়োজন মতো কিনে নিয়ে যান। প্রতি কেজি পানি ফল বিক্রি করে প্রতিদিন ৪-৫শ টাকা আয় হচ্ছে। আমার মত শতাধিক মানুষ এভাবে পানি ফল বিক্রি করছেন।

অপর পানি ফল ক্রেতা শহরের পলাশপোল এলাকার এসএম পলাশ জানান, এখানে একেবারেই টাটকা পানি ফল পাচ্ছি। শহরের থেকে এখানে দামও কম।

পানি ফল চাষী দেবহাটার চাঁদপুর এলাকার গোলাম রসুল বলেন, এক বিঘা জমিতে পানি ফল চাষ করতে ১০/১২ হাজার টাকা খরচ হয়। চাষের তিন মাস পর ফল বিক্রি উপযোগী হয়। এক বিঘা জমিতে ২৫ হাজার টাকার মত পানি ফল বিক্রি করা যায়।

বিলের পতিত জমি ও জলাশয় যেখানে কোনো ফসল উৎপাদন হয় না এমন জমি পানি ফল চাষের উপযোগী। এ বছর সাতক্ষীরা জেলায় একশ হেক্টর জমিতে পানি ফল চাষ হচ্ছে বলে বিজ্ঞাপন চ্যানেলকে জানান জেলা খামার বাড়ির কৃষি প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা জিএম আব্দুল গফুর।

তিনি বলেন, গত বছর ৭০ হেক্টর জমিতে পানি ফল চাষ হয়েছিল। অল্প ব্যয়ে অধিক লাভজনক হওয়ায় এই বছর চাষের পরিমাণ আরো বেড়েছে। এটি পুষ্টিকর ও সুস্বাদু। কোনো ক্ষতিকর দিন নেই।

জেলার দেবহাটা ও কালিগঞ্জ উপজেলায় এই পানি ফল চাষ বেশি হচ্ছে। বাকি উপজেলাগুলোতেও কমবেশি চাষ হয়।