আজ বৃহস্পতিবার | ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ || ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ || সময় ০৪:৩৮ পূর্বাহ্ন
photo

কাপাসিয়ায় জনতা ব্যাংকের শাখা না থাকায় গ্রাহকরা সেবা বঞ্চিত

     বুধবার, ২৯ আগস্ট, ২০১৮

Photo
গাজীপুর জেলার তিনটি উপজেলায় জনতা ব্যাংকের শাখা নেই

কাপাসিয়া (গাজীপুর) থেকে শামসুল হুদা লিটন: ঐতিহ্যবাহী গাজীপুরের কাপাসিয়ায় জনতা ব্যাংক লিমিটেডের কোন শাখা না থাকায় গ্রাহকরা দীর্ঘদিন যাবত সুনির্দিষ্ট সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন এমনকি পাশর্^বর্তী কালীগঞ্জ শ্রীপুর উপজেলা সহ আশপাশের কোথাও জনতা ব্যাংকের শাখা নেই

জনতা ব্যাংক দেশের শীর্ষ স্থানীয় ব্যাংক হওয়া সত্ত্বেও এলাকার মানুষ জনতা ব্যাংকের কোন শাখার সাথে লেনদেন করতে পারছে না অনেক সময় বাধ্য হয়ে অন্য ব্যাংকের মাধ্যমে লেন-দেন করতে চাইলে গ্রাহকদের চরম হয়রানীর শিকার হতে হয় 

স্বাধিন বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী বঙ্গতাজ তাজউদ্দীন আহমদ, প্রথম এর্টনি জেনারেল ফকির সাহাব উদ্দিন, সাবেক মন্ত্রী ফকির আব্দুল মান্নান, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অবঃ) হান্নান শাহ্, বিচারপতি শাহ্ আবু নঈম মোমিনুর রহমানের মত শত শত গুনীজন এলাকায় জন্মগ্রহন করেছেন ইতিহাস ঐতিহ্যের দিক থেকে এলাকার গুরুত্ব অপরিসীম লাখ মানুষের বাসযোগ্য কাপাসিয়ার প্রায় ৪০/৫০ হাজার মানুষ ইউরোপ, আমেরিকা, মধ্যপ্রাচ্য সহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে চাকুরী করছে গড়ে প্রতি পরিবারে / জন করে বিদেশে চাকুরী করছে কাপাসিয়ার রাজনৈতিক সচেতন মানুষ প্রায় পঁচাত্তর ভাগ শিক্ষিত এখানে ১৮৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৭৬টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৭টি কলেজ, ৪টি কারিগরি কলেজ সহ শত শত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে  সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে শুরু করে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দপ্তরে এলাকার অসংখ্য মানুষ চাকুরী করছে  কাপাসিয়া উপজেলা শহর সহ প্রায় শতাধিক গুরুত্বপূর্ণ বাজার রয়েছে বৈদেশিক মূদ্রা আয়ের দিক থেকে কাপাসিয়া দেশের শীর্ষে রয়েছে উপজেলা শহরে বর্তমানে শত শত গুরুত্বপূর্ণ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে কাপাসিয়া আম, কাঁঠাল, আনারস, পেয়ারা সহ বিভিন্ন মৌসুমী ফলের জন্য বিখ্যাত বর্তমানে কাপাসিয়াতে সোনালী, অগ্রণী, কৃষি ব্যাংক ছাড়াও আল-আরাফাহ্, মিউচ্যুয়াল ট্রাষ্ট, সাউথ-ইষ্ট, ইসলামী ব্যাংক, ব্র্যাক, ইউসিবিএল, আইএফআইসি, কর্মসংস্থান ব্যাংক, আনসার ভিডিপি ব্যাংক রয়েছে অথচ জনতা ব্যাংকের বিপুল চাহিদা থাকা সত্ত্বেও এখানে কোন শাখা গড়ে উঠেনি বেসরকারী ব্যাংক গুলোর নানা ছলচাতুরীর ফাঁদে পড়ে ইতিমধ্যে অনেক প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ীরা দেউলিয়া হয়ে পড়েছে তাদের দৌরাত্বের কারনে কাপাসিয়াতে গ্রামীণ ব্যাংক, ব্র্যাক, আশা সহ প্রথম সারির প্রায় ২০টি বেসরকারী সেবাসংস্থা (এনজিও) রয়েছে স্থানীয় ব্যাংক গুলোর দৌরাত্বের কারনে বিদেশে অবস্থানরত চাকুরীজীবীরা আতœীয়-স্বজনদের নিকট বেসরকারী সংস্থার মাধ্যমে টাকা পাঠিয়ে থাকেন দেশের যে কোন এলাকার চেয়ে কাপাসিয়ায় রেমিট্যান্সধারীর সংখ্যা অনেক বেশী 

জনতা ব্যাংকের পল্লী ঋণ, কাঁচা চামড়া ক্রয়-বিক্রয়, কমার্শিয়াল রিয়েল এস্টেট ঋণ, একক গৃহ নিমার্ণ ঋণ, এপার্টমেন্ট ক্রয় ঋণ, গাভী পালন ঋণ, কনজ্যুমারস ফাইন্যান্সিং, বিশেষায়িত ঋণ, মহিলা উদ্যোক্তা উন্নয়ন, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, তাঁত ঋণ ইত্যাদি থাকা সত্ত্বেও এলাকার সাধারণ মানুষ জনতা ব্যাংকের যে কোন সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে আর এই সুযোগে স্থানীয় ব্যাংক এনজিও গুলো মনোপলি ব্যবসা করে যাচ্ছে বলে ব্যাপক প্রচার আছে

এছাড়া শুরু থেকেই উপজেলা পর্যায়ে একক ভাবে সোনালী ব্যাংকের উপর কিছু সুনির্দিষ্ট লেনদেনের দায়িত্ব থাকায় তাদের ভীষণ চাপের মধ্যে থাকতে হয় বিশেষ করে ঈদের সময় সরকারী-বেসরকারী বেতন ভাতা, পেনশন ভাতা, ঠিকাদারী বিল, মুক্তিযোদ্ধা ভাতা, বয়স্ক ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা, হিজড়া ভাতা সহ নানা ধরনের লেনদেনে গ্রাহকদের চরম ভোগান্তি হয়রানীর স্বিকার হতে হয়<




photo
বিশেষ বিজ্ঞাপন